সরকারকে জাতীয় সংলাপ আহ্বান ড. কামালের

0
143

নতুন করে জাতীয় সংসদ নির্বাচন আয়োজনের পথ বের করতে সরকারকে জাতীয় সংলাপ আয়োজনের আহ্বান জানিয়েছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন। তিনি বলেছেন, ‘সংলাপের মধ্য দিয়ে সিদ্ধান্তগুলো নেওয়া হোক কিভাবে আমরা সংবিধান মেনে নির্বাচন করে নির্বাচিত সংসদ ও সরকার গঠন করব।’

বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে গণফোরাম আয়োজিত আলোচনাসভায় ড. কামাল সরকারকে এই আহ্বান জানান। প্রশ্ন তুলে তিনি বলেন, ৩০ ডিসেম্বর অবাধ নির্বাচন হয়েছে তা কি কেউ বলবে? আসুন বছরের প্রথম দিকেই সংকট সৃষ্টি না করে বলে দিন—যেসব করা হয়েছে তার কোনোটাই থাকবে না। সবার সঙ্গে জাতীয় সংলাপ করুন।

ড. কামাল বলেন, টেলিভিশনগুলো বলছে যে কামাল হোসেন বুঝতে পারছেন না ঘটনা তো ২৯ তারিখ রাতেই ঘটে গেছে। এটা কেন এভাবে করতে হবে? এসবের অর্থটা কী? ১৭ কোটি মানুষকে নিয়ে কি খেলা করা যায়? মানসিকভাবে কেউ সুস্থ থাকলে এসব করতে পারে না। এটা অসুস্থ মানসিকতার পরিচয়। এটা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। সুষ্ঠু-গ্রহণযোগ্য নির্বাচন ছাড়া জনগণের প্রতিনিধি হওয়া যায় না।

একাত্তরে বঙ্গবন্ধুর দূরদর্শী বিভিন্ন সিদ্ধান্তের কথা তুলে ধরেন ওই সময়ে তাঁর ঘনিষ্ঠ সহকর্মী সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. কামাল হোসেন।

মুক্তিযুদ্ধের চেতনা যদি দল ও ব্যক্তির ক্ষমতা হয় তাহলে জনগণ সেটা চায় না বলে মন্তব্য করেন জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব। তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব এক বিষয় নয়। বঙ্গবন্ধু ও স্বাধীনতা সমার্থক। একটিকে বাদ দিয়ে আরেকটি উপলব্ধি করা যাবে না। তিনিই দেশের স্থপতি। ৩০ ডিসেম্বর ক্ষমতার লোভে গণতন্ত্রকে যেভাবে হত্যা করা হয়েছে, এ ধরনের বর্বর উলঙ্গ ভোট ডাকাতি আর কোনো দেশে হয়েছে বলে শুনিনি। এভাবে ৩০০ আসনে ঘুষ দিয়ে, দুর্নীতি করে, পুরো প্রশাসন যন্ত্রকে ধ্বংস করে দিয়ে কোনো সরকারের পক্ষে এই রাষ্ট্র পরিচালনা করা আর সম্ভবপর নয় বলে আমি মনে করি।’

গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী বলেন, আওয়ামী লীগ প্রতিদিন বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করছে, তাঁর আদর্শকে হত্যা করছে, ‘সংবিধানকে হত্যা করছে। জনগণের সঙ্গে অনর্গল মিথ্যাচার আর প্রতারণা করছে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে গেলে, বাংলাদেশকে টিকিয়ে রাখতে গেলে, সংবিধান টিকিয়ে রাখতে গেলে এই ঘৃণীত সরকারকে হটাতে হবে।’

সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু বলেন, ‘৩০ ডিসেম্বর কেমন নির্বাচন হয়েছে তা ব্যাখ্যা করার প্রয়োজন আছে বলে আমি মনে করি না। শুধু জাতি নয়, পুরো বিশ্ব হতবাক হয়েছে—এ কেমন নির্বাচন হলো!’

ড. কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে আলোচনাসভায় গণফোরামের কেন্দ্রীয় নেতা অধ্যাপক আবু সাইয়িদ, অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল আমসা আমিন, মফিজুল ইসলাম খান কামাল, মোকাব্বির খান, অধ্যাপক আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বীরপ্রতীক, অবসরপ্রাপ্ত মেজর আসাদুজ্জামান প্রমুখ বক্তব্য দেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here